কাতার বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়নরা কত টাকা পাবে, জানলে অবাক হবেন

পূর্বের আসরগুলোর তুলনায় প্রাইজমানি বাড়ছে কাতার বিশ্বকাপে। এবার ৩২টি দলের মধ্যে ভাগ হবে ৪৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। বাংলাদেশের টাকায় যার পরিমাণ দাঁড়ায় ৩ হাজার ৭৮৪ কোটি টাকা। এর মধ্য থেকে চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ৪২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ৩৬১ কোটি টাকারও বেশি। খবর দোহা নিউজের

 

এছাড়াও রানার্স আপ, সেমিফাইনাল, কোয়ার্টার ফাইনাল কিংবা দ্বিতীয় পর্বে খেলা সব দলের জন্যই থাকছে বিশাল অঙ্কের অর্থ পুরস্কার। বিশ্বকাপের মঞ্চে নাম লেখানো শুধু মর্যাদারই নয় বরং আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনাও থাকে এখানে।

 

প্রথম আসর থেকে শুরু করে প্রতিবারই বেড়েছে অর্থের পরিমাণ। যার ব্যতিক্রম হচ্ছে না কাতার বিশ্বকাপেও। বরং এই আসরে রেকর্ড পরিমাণ প্রাইজমানি নিয়ে হাজির বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

 

মোট সাত ক্যাটাগরিতে এবার অর্থ পুরষ্কার বুঝিয়ে দেওয়া হবে দলগুলোকে। যেখানে প্রথম পর্ব থেকে বাদ পড়া ১৬টি দলের প্রত্যেকেই পাবে ৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার করে। এই ক্যাটাগরিতে মোট ১৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করবে ফিফা। এছাড়াও বিশ্বকাপে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি স্বরূপ দেওয়া হবে আরও দেড় মিলিয়ন। যা প্রাইজমানির বাইরে।

 

দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠা দলগুলোর অর্থ পুরস্কার বৃদ্ধি পাবে অবধারিতভাবেই। প্রথম পর্বে যা ছিল ৯ মিলিয়ন, তা গিয়ে দাঁড়াবে ১৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে। অর্থাৎ এই পর্বে বাদ পড়া ৮ দলের প্রত্যেকেই পাবে সমপরিমাণ অর্থ। কিন্তু যারা কোয়ার্টার ফাইনালে চলে যাবে তাদের জন্য বিবেচিত হবে পরবর্তী গ্রেড।

 

শীর্ষ আট থেকে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করা চার দল প্রত্যেকের জন্যই থাকছে অবস্থান অনুযায়ী আলাদা প্রাইজমানি। তবে যারা বাদ পড়বে হতাশ হওয়ার কিছুই নেই। অর্থের হিসেবে বাদ পড়ারা যা পাবে যার পরিমাণ ১৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার করে। এরপর থেকেই অর্থ পুরস্কার চলে যাবে পজিশন গ্রেডে।

 

এদিকে সেমিফাইনালিস্ট চার দল থেকে বাদ পড়া দুই দলের মধ্যে যে তৃতীয় হবে, সে পকেটে পুড়বে ২৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। তার চেয়ে মাত্র দুই মিলিয়ন ডলার কম পাবে চতুর্থ অবস্থানে থাকা দল। নিঃশ্বাস দূরত্বে গিয়েও যারা হতাশায় পুরবে বিশ্বকাপ না জেতার তাদের জন্য প্রাইজমানির অঙ্কটা ৩০ মিলিয়ন ডলারের। বাংলা টাকায় যার পরিমাণ ২৫৮ কোটি টাকা।

 

অন্যদিকে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন ছয় কেজি ১৭৫ গ্রাম ওজনের সোনালী ট্রফি জয় করার পাশাপাশি পকেটে পুরবে ৪২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ৩৬১ কোটি টাকা। যা ব্রাজিল বিশ্বকাপের তুলনায় প্রায় ৮০ গুণ। সর্ব সাকুল্যে কাতার বিশ্বকাপের মোট প্রাইজমানি ৪৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ৩ হাজার ৭৮৪ কোটি টাকা।

Be the first to comment

Leave a Reply