শিরোনামঃ
বিয়ে করে বাংলাদেশের জামাই হয়ে গেলাম: রাজিয়াকে বিয়ে করে বললেন কোরিয়ান যুবক হাসপাতালের পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে বিয়ে করলেন নারী চিকিৎসক ছাত্রলীগের ছেলেদের সিগারেট খাওয়া দেখাতে পারলে রাজনীতি ছেড়ে দেব: বাবু ১৬ বছর আগে মারা গেছেন স্ত্রী, প্রতিদিন কবরের কাছে থেকে সঙ্গ দিচ্ছেন স্বামী হায়া কার্ড থাকলেই দেশ থেকে তিনজনকে আনা যাবে কাতার বাঁধনকে বাচ্চাসহ বিয়ে করতে হবে কখনও ভাবিনি: জয় আমি যদি ভুলভাল কিছু একটা করে ফেলি তার দায়ভার কে নেবে: পূজা চেরি স্ত্রী-সন্তান রেখে গোপনে বাংলাদেশে এসে রত্নাকে বিয়ে করেন ইতালির যুবক সড়ক দুর্ঘটনায় পেট ফেটে ভূমিষ্ঠ হওয়া সেই ফাতেমার চোখজোড়া যেন মাকে খোঁজে আমি পরীমনির স্বামী, তার জন্য সত্যিই গর্বিত: শরিফুল রাজ
বিদেশ থেকে ৩৬ বছর পর নিঃস্ব হয়ে ফেরা প্রবাসীকে নিতে চায়নি স্বজনরাও!

বিদেশ থেকে ৩৬ বছর পর নিঃস্ব হয়ে ফেরা প্রবাসীকে নিতে চায়নি স্বজনরাও!

তিন যুগ পর বাংলাদেশ দূতাবাসের সহযোগিতায় অবশে’ষে দেশে ফিরলেন অসিত লাল দে নামে এক বাহরাইন প্রবাসী। তার পাসপোর্ট নং (F244748)। দীর্ঘদিন পর প্রবা’সফেরত ব্য’ক্তি মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর উপজেলার আলীপুর গ্রামের উপেন্দ্র লাল দের ছেলে। অসিত লাল দে দীর্ঘ ৩৬ বছর আগে নিজের ভাগ্য ফে’রাতে ও পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতে বাহরাইন যান। এর পর থেকেই পরিবারের স’ঙ্গে যোগাযোগ ব’ন্ধ করে দেন।

 

এছাড়া এই দীর্ঘ সময়ের মধ্যে তিনি দেশেও আসেননি। তাই পরিবার থেকে তিনি বি’চ্ছি’ন্ন হয়ে পড়েন। বাহরাইন থেকে দূতাবাসের বরাত দিয়ে প্রবাসী সালেহ আহমদ সাকী বাং’লানিউ’জকে এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, গত ২৪ মার্চ হ’ঠাৎ করে স্ট্রো’ক করে সালমানিয়া হাসপাতালে ভর্তি হন অসিত লাল। ভর্তির পর তার কোনো মালিক বা স্প’নসর এবং কোনো আত্মীয়-স্বজন না থাকায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ দূতাবাসের স’ঙ্গে যোগাযোগ করে।

 

দূতাবাসের সার্বিক সহযোগিতায় দীর্ঘ পাঁচ মাস চিকিৎসার পর কিছুটা সু’স্থ হয়ে ওঠেন তিনি। দূতাবাস তাকে দেশে পাঠাতে তার ভাই ও আত্মীয় স্বজনদের স’ঙ্গে যোগাযোগ করলে কেউই তাকে গ্রহণ করতে রাজি হননি। তাদের ক্ষো’ভ, ৩৬ বছর যে মানুষটি আমাদের প্রয়োজন মনে করেনি, এখন কেন আমাদের প্রয়োজন? পরে রাষ্ট্রদূত ড. নজরুল ইসলামের নির্দেশনায় দূতাবাসের প্রচেষ্টায় রাজনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহযোগিতায় স্বজনরা অসিতকে গ্রহণ করতে রাজি হন।

 

অবশেষে দূতাবাস গত ৯ আগষ্ট ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড ও বাহরাইনস্থ বাংলাদেশ কমিউনিটির সহাযোগিতা নিয়ে অসিত লাল দেকে একজন প্রতিনিধিসহ দেশে পাঠায়। ১০ আগস্ট রাজনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রিয়াংকা পাল উপস্থিত থেকে তাকে পরিবারের লোকজনের হাতে তুলে দেন। রাজনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রিয়াংকা পাল বাং’লানিউ’জকে বলেন, অসিত লাল দে ব্রে’ন স্ট্রো’কের পর দূতাবাসের সহযোগিতায় দেশে আসেন। তিনি একেবারে নিঃ’স্ব অবস্থায় দেশে ফিরেছেন। তার দে’হের একাংশ প্যা’রালাইজ’ড হয়ে গেছে। ব্যক্তি জীবনে তিনি অবিবাহিত।

 

বাহরাইন দূতাবাস বেলাল আহমদ নামে একজন প্রতিনিধি দিয়ে তাকে দেশে পাঠিয়েছেন। গ্রামের বাড়িতে তার একমাত্র ভাই উমা দে রয়েছেন। তিনি হযরত শাহজালাল এয়ারপোর্টে গিয়ে তাকে এগিয়ে নিয়ে আসেন। তাছাড়া পরিবারের অব’স্থাও খুবই খা’রা’প। এ অবস্থায় তার চিকিৎসার প্রয়োজন রয়েছে। আপাতত দূতাবাস থেকে ৬১ হাজার টাকা স’ঙ্গে দেওয়া হয়েছে। আরো এক লাখ টাকা দেওয়া হবে।

 

তিনি বলেন, ওই প্রবাসীর চিকিৎসার্থে আমরা সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে আ’র্থিক সহায়তা দেওয়ানোর চেষ্টা করবো। আগামী মি’টিংয়ে এই প্রস্তাব তোলার পর জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠানো হবে। তবে তার গ্রামের বাড়ি দু’র্গম এলাকায়। সেখান থেকে এসে থেরা’পি দেওয়ানোটাও দু’স্কর। অবশ্য আমরা তার বাড়িতে গিয়েছি। তার চিকিৎসার বিষয়েও খোঁজ খবর রাখবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© ২০২১ | বিডি রাইট কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design BY NewsTheme